উইঘুরদের সঙ্গে চীনের আচরণকে গণহত্যার স্বীকৃতি দিলো কানাডা

21

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : চীনা সরকারের উইঘুর মুসলমানদের ওপর আচরণকে গণহত্যা হিসেবে আখ্যায়িত করেছে কানাডার সংসদ। সোমবার কানাডার হাউস অব কমন্সে ২৬৬-০ ভোটের বিপুল ব্যবধানে এই ঘোষণা পাস হয়।ব্রিটিশ গণমাধ্যম বিবিসির প্রতিবেদনে এই তথ্য পাওয়া গেছে।

ক্ষমতাসীন লিবারাল পার্টির আইনপ্রণেতাদের বড় একটি অংশ এবং সকল বিরোধী দলগুলো এই ঘোষণার পক্ষে ভোট দিয়েছেন। তবে কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো ও তার মন্ত্রীসভার অধিকাংশ সদস্য ভোট দেয়া থেকে বিরত ছিলেন। ট্রুডো বলেন, সিদ্ধান্ত নেয়ার আগে বিষয়টি আরও যাচাই বাছাই করা দরকার।

ভোটের সময় পার্লামেন্টে শুধুমাত্র পররাষ্ট্রমন্ত্রী মার্ক গার্ন্যুয়েকে পার্লামেন্টে উপস্থিতি হতে দেখা গেছে। এদিকে কানাডায় চীনের রাষ্ট্রদূত বলেছেন, পার্লামেন্টের প্রস্তাব চীনের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে হস্তক্ষেপের সামিল।

মানবাধিকার কর্মীরা মনে করেন চীন প্রায় দশ লাখ উইঘুরকে গত কয়েক বছর ধরে ক্যাম্পে আটক করে রেখেছে। চীনে প্রায় দেড় কোটি উইঘুর মুসলমানের বাস। জিনজিয়াং প্রদেশের জনসংখ্যার ৪৫ শতাংশই উইঘুর মুসলিম। এই প্রদেশটি তিব্বতের মতো স্বশাসিত একটি অঞ্চল। বিদেশি মিডিয়ার সেখানে প্রবেশের ব্যাপারে কঠোর বিধিনিষেধ রয়েছে।

কিন্তু গত বেশ কয়েক বছর ধরে বিভিন্ন সূত্রে খবর আসছে, সেখানে বসবাসরত উইঘুরসহ ইসলাম ধর্মাবলম্বীদের ওপর ব্যাপক নিপীড়ন চালাচ্ছে বেইজিং। চীন বরাবরই এসব অভিযোগ অস্বীকার করে আসছে। যুক্তরাষ্ট্রের পর কানাডা হল দ্বিতীয় দেশ যারা উইঘুরদের প্রতি চীনের আচরণকে গণহত্যা বলে ঘোষণা দিল।