ব্যাংকগুলোকে আন্তরিক হওয়ার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

29

নিজস্ব প্রতিবেদক : বেসরকারি ব্যাংকগুলোকে গ্রামীণ অর্থনীতি শক্তিশালী করতে ক্ষুদ্রঋণ প্রদানে আরও আন্তরিক হওয়ার আহ্বানও জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বুধবার প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণভাণ্ডারে বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংকসের (বিএবি) অনুদানের কম্বল গ্রহণকালে একথা বলেন তিনি। প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘গ্রামীণ অর্থনীতি সমৃদ্ধ করতে পারলে তৃণমূলে গ্রাহক ও প্রতিষ্ঠান উভয়ই লাভবান হবে।’ তিনি আরও বলেন, ‘ব্যাংকাররা জাতির প্রয়োজনে সবসময় এগিয়ে আসেন। করোনায়ও তারা আমাদের পাশে ছিলেন। তাদের এই বদান্যতার কারণে আমরা মানুষের পাশে দাঁড়াতে পারি।’

দেশে গৃহহীনদের জন্য ঘর করে দিতে সরকারের উদ্যোগের কথা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘মুজিবর্ষে দেশে কোনো মানুষ গৃহহীন থাকবে না, ভূমিহীন থাকবে না- সরকারের সেই লক্ষ্য নিয়ে কাজ করছে।’ ব্যাংকগুলোকে গৃহহীনদের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আপনারা আপনাদের নিজ নিজ এলাকায় যদি কেউ ভূমিহীন থাকে, গৃহহীন থাকে আপনারাও তাদের কিছু ঘরবাড়ি তৈরি করে দিতে পারেন। আমরা সরকারের পক্ষ থেকে দিচ্ছি, আবার বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানও দিচ্ছে। সেখানে আপনারাও সেভাবে একটু সহযোগিতা করতে পারেন, মানুষের পাশে দাঁড়াতে পারেন।’

ব্যাংকের মাধ্যমে রেমিট্যান্স পাঠালে ২ শতাংশ প্রণোদনা দেওয়ার কথা উল্লেখ করে সরকার প্রধান বলেন, ‘সরকার ব্যাংক ব্যবহারে সবাইকে উৎসাহিত করছে, এতে সবাই লাভবান হচ্ছে। আমরা রেমিট্যান্সের ক্ষেত্রে ২ শতাংশ প্রণোদনা দেওয়ায় এখন সরাসরি ব্যাংকের মাধ্যমে এই টাকাটা আসছে। তাতে আমার যেমন রেমিট্যান্স বাড়ছে আবার ব্যাংকেরও কাজ বাড়ছে। তারাও সুযোগ পাচ্ছেন।’ ভাইরাস থেকে রক্ষা পেতে বাংলাদেশের সবাইকে আগের চেয়ে বেশি সচেতন হওয়ার আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘করোনা এখন অনেকটা নিয়ন্ত্রণে, কিন্তু আপনারা দেখেছেন ইউরোপসহ বিভিন্ন দেশে আবার করোনার প্রাদুর্ভাব দেখা দিচ্ছে। সেক্ষেত্রে এখন থেকেই সচেতন হতে হবে। এখন আমাদের আগের চেয়ে সচেতন হতে হবে।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘এরইমধ্যে আমরা কিন্তু এ ব্যাপারে যথাযথ ব্যবস্থা নিচ্ছি এবং সবাইকে আহ্বান করছি যে আপনার একটু সচেতন হোন, সবাই নিজেকে সুরক্ষিত করুন, অন্যকে সুরক্ষিত করুন। যাতে সেভাবে আমরা যেন এই করোনার প্রাদুর্ভাব থেকে মানুষকে বাঁচাতে পারি, রক্ষা করতে পারি। সেদিকে আমরা বিশেষভাবে দৃষ্টি দিচ্ছি শুরু থেকে।’ করোনার দ্বিতীয় ধাক্কায় অর্থনীতির ওপর যেন প্রভাব না পড়ে সে বিষয়ে সংশ্লিষ্টদের নির্দেশনা দিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের অর্থনীতির উপর যেন কোনোরকম প্রভাব না পড়ে, মানুষের জীবনযাত্রা যেন ঠিক থাকে। আর আমাদের অর্থনীতির চাকাটা যেন সচল থাকে- এটাই আমরা চাই।’

উল্লেখ্য, বুধবার প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে ২৫ লাখ ৯৫ হাজার কম্বল অনুদান দিয়েছে বেসরকারি ব্যাংক মালিকদের সংগঠন বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংকস (বিএবি)। প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে কম্বল গ্রহণ করেন তার মুখ্য সচিব আহমদ কায়কাউস। শেখ হাসিনা তার সরকারি বাসভবন গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে অনুষ্ঠানে যোগ দেন। এসময় শাহ্জালাল ইসলামী ব্যাংক লিমিটেডের পক্ষ থেকে ৭৫ হাজার পিস কম্বল প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ ভাণ্ডারে হস্তান্তর করা হয়। শাহ্জালাল ইসলামী ব্যাংকের পরিচালক ও নির্বাহী কমিটির চেয়ারম্যান ড. আনোয়ার হোসেন খান এমপি প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব ড. আহমদ কায়কাউসের কাছে কম্বলের নমুনা হস্তান্তর করেন।