রিয়ার বিরুদ্ধে সুশান্তের বাবার অভিযোগ দায়ের

7

বিনোদন ডেস্ক : অসংখ্য প্রশ্নের জন্ম দিয়ে হঠাৎ চলে গেলেন সুশান্ত সিং রাজপুত। এই আত্মহত্যাকে ঘিরে যেসব ধোঁয়াশা তৈরি হলো সেগুলোর জট এখনও খোলেনি। মুম্বাই পুলিশের তদন্তে অনেক তথ্য বেরিয়ে এলেও, সেগুলো থেকে স্পষ্ট কোনও উত্তর মেলে না।

তবে সেসব বিষয়ে স্পষ্ট কোনও ধারণা এখনও মেলেনি পুলিশের পক্ষ থেকে। তার আগেই সুশান্তের জন্মস্থান পাটনার রাজীব নগর থানায় হাজির হলেন তার বাবা কে কে সিং। দায়ের করেছেন রিয়ার বিরুদ্ধে অভিযোগ।
অভিযোগে উল্লেখ করা হয়, রিয়া এবং তার পরিবারের সদস্যরা সুশান্তের সঙ্গে প্রতারণা করেছে। তাকে আর্থিকভাবে শোষণ করেছে। সুশান্তের বাবা এটাও মনে করেন, রিয়া তার ছেলেকে নানা কৌশলে তাদের পরিবার থেকে পুরোপুরি আলাদা করে ফেলেছিল।

সুশান্তের বাবার দায়ের করা এই অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্তের জন্য চার সদস্যের একটি পুলিশি দল গঠন করা হয়েছে। তদন্ত দল এরমধ্যে পাটনা থেকে মুম্বাই উড়ে গেছে অভিযোগটি খতিয়ে দেখতে। এদিকে প্রথম দিন থেকেই মুম্বাই পুলিশ সুশান্তের মৃত্যুর মামলাটি তদন্ত করছে। এখন পর্যন্ত অভিযুক্ত রিয়া চক্রবর্তী, ঘনিষ্ঠ বন্ধু, কাজের সহযোগী এবং চলচ্চিত্র নির্মাতা সঞ্জয় লীলা বানসালি, মহেশ ভাট, ধর্ম প্রোডাকশনের সিইও অপূর্ব মেহতাসহ মোট ৩৯ জনকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে মুম্বাই পুলিশ।

গত ১৪ জুন মুম্বাইয়ে বান্দ্রার কার্টার রোডে নিজের ফ্ল্যাটে সুশান্ত সিং রাজপুতের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করা হয়। ময়নাতদন্ত প্রতিবেদনে জানা গেছে, বিছানার চাদর গলায় প্যাঁচিয়ে ঝুলে থাকায় অ্যাসপিক্সিয়ার (অক্সিজেনের ঘাটতিতে দম বন্ধ হওয়া) কারণে মারা গেছেন তিনি। তার ঘরে পাওয়া গেছে প্রেসক্রিপশন ও অ্যান্টি ডিপ্রেশন ওষুধ। তবে কোনও সুইসাইড নোট মেলেনি।

১৮ জুন থানায় ডেকে পুলিশি জিজ্ঞাসাবাদে রিয়া উল্লেখ করেন, কয়েক মাস ধরে সত্যিই বিষণ্ণতায় ভুগছিলেন সুশান্ত। তবে ওষুধ ব্যবহার করতেন না তিনি। পুলিশকে এ তথ্যও দিয়েছেন রিয়া। হতাশার বৃত্ত থেকে বেরিয়ে আসতে যোগব্যায়াম ও মেডিটেশনকে বেছে নিয়েছিলেন প্রয়াত তারকা। ওষুধ নিতে প্রেমিককে রাজি করাতে অনেক চেষ্টার পরও ব্যর্থ হন তিনি।

সুশান্তের সঙ্গে রিয়ার প্রেমের গুঞ্জন চলছিল অনেকদিন ধরে। তারা একসঙ্গে বিদেশে ঘুরে বেড়িয়েছেন। কিন্তু কখনও সম্পর্কের কথা প্রকাশ্যে মুখ ফুটে বলেননি কেউই। ১৮ জুন মুম্বাই পুলিশের সামনে সুশান্তের সঙ্গে মন দেওয়া-নেওয়ার কথা স্বীকার করে নিয়েছেন রিয়া। তিনি জানান, ভারতে অবরুদ্ধ অবস্থা (লকডাউন) থাকাকালে একই অ্যাপার্টমেন্টে ছিলেন তারা। কিন্তু একদিন ঝগড়ার কারণে রিয়া বেরিয়ে চলে যান। তবে এরপরও মোবাইল ফোনে কথা ও মেসেজ আদান-প্রদান হয়েছে তাদের।

পুলিশকে রিয়া আরও জানান, তাকেই বিয়ে করার প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন সুশান্ত। এ বছরের নভেম্বরে তাদের সাত পাকে বাঁধা পড়ার কথা ছিল। জীবনের নতুন ইনিংস শুরু করতে নতুন বাড়ি খুঁজছিলেন দু’জনে। বিয়ের আগে রুমি জাফরির পরিচালনায় একটি ও অন্য আরেকটি ছবিতে একসঙ্গে অভিনয়ের পরিকল্পনা ছিল সুশান্ত-রিয়ার। পুলিশকে এ তথ্যটিও জানাতে ভোলেননি সুশান্তের প্রেমিকা।

সম্প্রতি রিয়ার বিরুদ্ধে সুশান্তের বাবার সরাসরি অভিযোগ দায়েরের মধ্য দিয়ে গুঞ্জনের বিষয়টি আরও গতি পেলো। কারণ, বলিউড বাতাসে প্রথম থেকেই ভাসছে- রিয়া চক্রবর্তীর অবহেলা আর অসম এক প্রেমের ঘটনাকে কেন্দ্র করেই সুশান্ত চক্রবর্তী অকালে ঝরে পড়লেন।